দু র্গা প দ    চ ট্টো পা ধ্যা য়-র লেখা–“নর্থ সেন্টিনেল আইল্যাণ্ড”

1
44
পরিচিতিঃ প্রবন্ধকার ও গবেষক দুর্গাপদ চট্টোপাধ্যায়ের জন্ম পঞ্চাশের দশকের শেষার্ধে রাঢ় মাটির দেশ বাঁকুড়া জেলার এক প্রত্যন্ত গ্রামে ৷ গ্রামের নাম তেলেন্ডা ৷ চাকুরী ও রবীন্দ্র অনুসন্ধিৎসা নিয়ে কলকাতায় আসেন সত্তরের দশকে ৷ লেখালিখির সেই শুরু ৷ ‘ বর্তমান ‘ সংবাদপত্রে ধারাবাহিক ও রেডিও নাটক দিয়ে লেখালিখির হাতেখড়ি ৷ লেখক এ যাবৎ চল্লিশটির বেশি বই লিখেছেন ৷ তাঁর উল্লেখযোগ্য বইগুলির মধ্যে ‘ নরবলির ইতিহাস ‘, ‘ রামায়ণের বাল্মীকি ‘, ‘ সংস্কৃত সাহিত্যে বারাঙ্গনা ‘, ‘ অজানা অচেনা মহাভারত ‘, ‘ মিথ্রিডেটিজম ও ইতিহাসের বিষকন্যা ‘, ‘ শরৎচন্দ্রের জীবনে নারী ‘, ও রবীন্দ্র- বিষয়ক গ্রন্থ – ‘ রবীন্দ্রনাথের নোবেল প্রাপ্তির ইতিবৃত্ত ‘,’ রবীন্দ্রনাথের মৃত্যু চেতনা ‘, রবীন্দ্রনাথের বিষাদযোগ ‘, ‘ অচেনা রবীন্দ্রনাথ ‘, অচেনা অজানা রবীন্দ্রনাথ ‘, ‘ রবীন্দ্রনাথের বিবাহবাসর ‘, ‘ রাণুর রবীন্দ্রনাথ ‘, ‘ রবীন্দ্রনাথের নতুন বৌঠান ‘ ও শ্রীচৈতন্যের মৃত্যু রহস্য বিষয়ক ‘ শ্রীচৈতন্য : অনন্ত জীবনের সত্যাণ্বেষণ ‘, ( দে’জ পাবলিশিং সং ও ‘ Storytel ‘ নির্মিত ওডিও বুক ) বইগুলি ইতিমধ্যে বিদ্বৎসমাজে সমাদৃত হয়েছে ৷ সাম্প্রতিক প্রবন্ধটিতে লেখক আধুনিক কবিতার পরাবাস্তববাদ ( Surrealism) প্রসঙ্গে কিছু আলোচনা করেছেন । বাইফোকালিজম্-র পাতায় আজ পাঠকদের জন্য তাঁরই একটি  প্রবন্ধ।

দু র্গা প দ    চ ট্টো পা ধ্যা য়-র লিখলেন আন্দামানের ইতিকথা

 

নর্থ সেন্টিনেল আইল্যাণ্ড

 

“The day was January 3, 1991. At night I sailed for North Sentinel Island in an MV Tarmugli ship. The next day, at eight o’clock in the morning, we boarded a government boat with lots of coconuts and headed for the island. At first I saw a few huts. A little later, a few sentinels were spotted on the beach. Some of them have bows and arrows in their hands.”
“দিনটা ছিল ১৯৯১ সালের ৩ জানুয়ারি। রাতে এম ভি তারমুগলি জাহাজে করে নর্থ সেন্টিনেল দ্বীপের উদ্দেশে রওনা হই আন্দামান ও নিকোবর প্রশাসনের উপজাতি কল্যাণ বিভাগের অধিকর্তা এস আওয়ারাদি, ডাক্তার অরুণ মল্লিক, সাধারণ পোশাকে দশ নিরাপত্তারক্ষী এবং আমি। পর দিন সকাল আটটা নাগাদ প্রচুর নারকেল নিয়ে একটি সরকারি নৌকায় চেপে আমরা এগিয়ে যাই দ্বীপের দিকে। প্রথমে চোখে পড়ে কয়েকটি কুঁড়েঘর। খানিক পরে সমুদ্রতীরে দেখা গেল অল্প কিছু সেন্টিনেলিকে। তাদের মধ্যে কয়েক জনের হাতে তির-ধনুক।”

সময় ১৯৯১ সালের ৩রা জানুয়ারি। জারোয়াদের মা বলে পরিচিত এক বাঙালি নৃবিজ্ঞানী প্রথম এই নিষিদ্ধ দ্বীপ ‘নর্থ সেণ্টিনেল আইল্যাণ্ডে’ ( North Sentinel Island )পদচিহ্ন রাখলেন। এটা চাঁদের দেশে পা রাখার মতোই বিস্ময়কর ছিল। কারণ খ্রিস্টপূর্ব তো বটেই, যিশুর জন্মের পরবর্তী সময়েও কেউ পৌঁছাতে পারেনি এই ‘ফরবিডেন আইল্যাণ্ডে’ (Forbidden Island)। যারা পৌঁছনোর চেষ্টা করেছে তারা আর ফিরে আসেনি। সে হিসেবে সভ্য জগতের পক্ষ্য থেকে নিষিদ্ধ এই দ্বীপে এক বাঙালি নৃবিজ্ঞানী ড.মধুমালা চট্টোপাধ্যায়ের প্রথম পদার্পন বলা যায়। ১৯৮৯ সালে আন্দামানে আসার পর ওঙ্গে উপজাতিদের নিয়ে কাজ করার অভিজ্ঞতা ছিল মধুমালার। তাদের ভাষাও কিছু  কিছু  রপ্ত করে ফেলেছিলেন তিনি। মধুভালা তার সেই রোমাঞ্চকর অভিজ্ঞতার কথা বলতে গিয়ে লিখেছেন,
আমি সেণ্টিনেলিদের উদ্দেশ্যে বললাম- “কাইরি ইচেইরা” (আমি তোমাদের মায়ের মতো। এ দিকে এসো), সেন্টিনেলিরা বলে, “নড়িয়ালি জাবা, জাবা” (আরও নারকেল পাঠাও)। কিন্তু ততক্ষণে নারকেলের ভাণ্ডার শেষ। “এরপর ১৯৯১ খ্রিস্টাব্দে ৫ জানুয়ারি মধুমালা চট্টোপাধ্যায় জারোয়াদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে যান। তিনিই ছিলেন জারোয়াদের সঙ্গে দেখা করতে আসা প্রথম মহিলা নৃবিজ্ঞানী। মধুমালাদেবীকে নৌকায় দেখে জারোয়া মহিলারা তাকে মিলালে চেরা(অর্থ- বন্ধু এখানে এসো) বলে চিৎকার দিয়ে তীরে আসতে ইঙ্গিত করে। যোগাযোগ দলে একজন মহিলাকে দেখে তারা নৃত্যের মাধ্যমে আনন্দ প্রকাশ করে। তারা মধুমালাদেবীকে গাছের ছাল, লতাপাতা দিয়ে তাদেরই হাতে তৈরি গহনা উপহার দেয়। ডাঃ মধুমালা চট্টোপাধ্যায় মোট আটবার জারোয়াদের এলাকায় গিয়ে তাদের সাথে দেখা করেন। ক্রমে আন্দামানবাসীদের কাছে তিনি হয়ে ওঠেন “জংলী ম্যাডাম”। আবার কেউ বলে-  “জারোয়াদের মা”।

নৃবিজ্ঞানী মতে— প্রায় ২ লক্ষ বৎসর আগে, নর-বানর থেকে আধুনিক মানুষ তথা Homo sapiens (হোমো-স্যাপিয়েন্স) নামক প্রজাতির আবির্ভাব ঘটেছিল আফ্রিকা ইথিওপিয়া অঞ্চলে। আদি মানুষের একটি দল প্রায় ১ লক্ষ ২৫ হাজার বৎসর আগে  ইথিওপিয়া সংলগ্ন ইরিত্রিয়া, সুদান এবং মিশরের দিকে ছড়িয়ে পড়া শুরু করে। খ্রিষ্টপূর্ব ৪০-২০ হাজার বৎসরের মধ্যে এরা ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছিল। এদের দ্বারাই সূচিত হয়েছিল ভারতের প্রাচীন প্রস্তরযুগ( Ancient Stone Age )। এই আদিজনগোষ্ঠীকে নেগ্রিটো হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এদের কয়েকটি দল সাগর পাড়ি দিয়ে আন্দামান-নিকোবর দ্বীপে পৌঁছেছিল। ১৭৭৭ খ্রিষ্টাব্দে ব্রিটিশরা এই অঞ্চলে একটি নৃতাত্ত্বিক সমীক্ষা চালায়। এই সমীক্ষা অনুসারে জানা যায়-নেগ্রিটোছাড়াও  প্রোটো-অস্ট্রালয়েড ও
মোঙ্গলীয় জাতিগোষ্ঠীর লোকেরাও এই দ্বীপাঞ্চলে এসেছিল।

কিছু কিছু নৃতত্ত্ববিদের মতে, জারোয়া ও ওঙ্গিদের মিলনে জন্ম হয়েছে সেন্টিনেলিজদের। কিন্তু   সেন্টিনেলিজরা সমুদ্র ডিঙিয়ে সেন্টিনেল দ্বীপে পৌঁছালো কিভাবে – এই নিয়ে নানা মুনির নানান মত প্রচলিত আছে। এবং সেগুলির প্রায় সবাই অনুমানভিত্তিক। কেউ বলেন, পঞ্চদশ শতাব্দীতে  মোজাম্বিকের একটি জাহাজ আন্দামানের কাছে ডুবে যায়। তাতে ৩০০ কাফ্রি ক্রীতদাস ক্রীতদাসী যাত্রী ছিল। সেই যাত্রীদের মধ্যে কয়েকজন সাঁতার কেটে আন্দামানের দ্বীপে আশ্রয় নেয়। তাদের উত্তরাধিকারী হলো এই ওঙ্গে, জারোয়া, ও সেন্টিনেলিজরা। আবার কারও মতে চীন ও মালয়ি জলদস্যুদের একটা গুরুত্বপূর্ণ ঘাটি ছিল আন্দামান দ্বীপে। বাইরে থেকে আসা জাহাজে লুটপাট ও নাবিকদের ওপর সন্ত্রাস সৃষ্টি করায় তারা অত্যন্ত দক্ষ ছিল। এই কাজে ব্যবহারের জন্য জলদস্যুরা কাফ্রিদের এনেছিল। সেটাই হলো আন্দামানের আদিম জনজাতিদের জন্মবৃত্তান্ত।

বর্তমানে আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ
ভারত প্রজাতন্ত্রের একটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল।
ভৌগোলিক অবস্থান: অক্ষাংশ ৬-১৪ ডিগ্রী উত্তর, দ্রাঘিমাংশ ৯২-৯৪ ডিগ্রী পূর্ব। আন্দামান বলতে বোঝায় বঙ্গোপসাগরের বুকে ইতস্তত ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা প্রায় ৫৫০ টি ছোট বড়ো দ্বীপ ও জঙ্গলে ঘেরা ভাসমান পাহাড়ের সমষ্টি। যদিও প্রশাসনিক দিক থেকে আন্দামান ও নিকোবরের দ্বীপ সংখ্যা ৩২৫(আন্দামের ২৫৮ ও নিকোবরের ৯২ )। আন্দামানের সব থেকে উত্তরের দ্বীপটির নাম-ল্যান্ডফল আইল্যান্ড এবং দক্ষিণতম দ্বীপটির নাম-লিটল আন্দামান। তেমনই নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের উত্তরে রয়েছে-কার নিকোবর এবং দক্ষিণে-গ্রেট নিকোবর আইল্যান্ড। গ্রেটার আন্দামানের পূর্বদিকে দুটি আগ্নেয় পাহাড় আছে। তাদের নাম যথাক্রমে নরকুন্ডম এবং ব্যারেন।

কিন্তু  আন্দামানের নাম আন্দামান হল কিভাবে। এই নিয়ে নানান কিংবদন্তি ও জনশ্রুতি চালু আছে। মালয়ী শব্দ ‘হন্ডুমান’ থেকে নাকি আন্দামান কথাটির উদ্ভব। একসময় মালয়ীরা আন্দামান থেকে ক্রীতদাস সংগ্রহ করতো এবং দ্বীপটির নাম দিয়েছিল- ‘হন্ডুমান আইল্যান্ড’ অর্থাৎ হনুমানের দ্বীপ। এই হন্ডুমান থেকেই নাকি আন্দামান শব্দের উৎপত্তি। আবার চীন ও জাপানি পর্যটকের বর্ণিত ‘ইয়াঙ টি আমাঙ’ (Yang-T-Amang ) ও ‘আন্দাবন’ (Andaban ) আন্দামান কথাটির উৎপত্তি হয়েছে বলে কেউ কেউ মনে করেন। আবার দ্বিতীয় শতাব্দীর বিখ্যাত রোমক জ্যোতির্বিদ টলেমির (Claudius Ptolemy) মানচিত্রে ‘আঙমান’ (Angman ) নামে আন্দামানের উল্লেখ আছে।

কিন্তু হাজার মাইল সমুদ্রের জল ডিঙিয়ে আন্দামানের মতো এক নির্জন দ্বীপে মানুষের প্রথম পদার্পণ ঘটলো কিভাবে। এ বিষয়ে নিকোবরীদের মধ্যে এক কিংবদন্তী আছে। নিকোবরীরা বিশ্বাস করে যে আন্দামান দ্বীপে একবার মহাপ্রলয় হয়েছিল। সেই প্রলয়ে জলের তোড়ে সব ভেসে যায়। শুধু  বেঁচেছিল এক পুরুষ ও এক কুক্কুরী। পরে সেই পুরুষের ঔরসে কুক্কুরীর পেটে সন্তান জন্ম নেয়। সেই সন্তানই হল আন্দামানিদের আদি পুরুষ। আরেকটি কিংবদন্তি আন্দামানি জনজাতিদের মধ্যে চালু আছে। তারা মনে করে এক বার্মিজ রাজকুমারীকে তার বাবা আন্দামান দ্বীপে নির্বাসন দিয়েছিলেন। নির্বাসনের কারণ হিসাবে বলা হয় এক পুরুষ কুকুরের সাথে রাজকুমারীর অস্বভাবিক যৌন আসক্তির জন্য তার বাবা এই নির্বাসন দণ্ড দিয়েছিলেন। নির্বাসনের সময় রাজকুমারী গর্ভবতী ছিলেন। এবং এই নির্জন দ্বীপে তার একটি সন্তান হয়। পরবর্তী কালে সেই সন্তানের ঔরসে রাজকুমারীর গর্ভে আরও সন্তানসন্ততির জন্ম হয়। এবং তারাই নাকি আন্দামানি জনজাতিদের আদি পুরুষ।

 বঙ্গোপসাগরের দক্ষিণ–পূর্ব অংশে কলকাতা থেকে প্রায় ১,২৫৫ কিলােমিটার এবং তামিলনাড়ু উপকূল থেকে ১,১৯১ কিলােমিটার দূরত্বে ২০৪ টি দ্বীপ নিয়ে গঠিত আন্দামান দ্বীপপুঞ্জ অবস্থিত। আন্দামান দ্বীপপুঞ্জ থেকে প্রায় ১২০ কিলােমিটার দূরে ১৯ টি দ্বীপ নিয়ে গঠিত নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ অবস্থিত। এই দ্বীপপুঞ্জ দক্ষিণে প্রায় ৬২ ° উত্তর অক্ষাংশ থেকে উত্তরে ১৪ ° উত্তর অক্ষাংশ পর্যন্ত বিস্তৃত। নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের দ্বীপগুলাের মধ্যে উত্তর সীমায় অবস্থিত কার–নিকোবর দ্বীপটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।

আন্দামান দ্বীপপুঞ্জের প্রাচীন ইতিহাস হল এরকম। ১০১৪ থেকে ১০৪২ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত এই দ্বীপ চোল সাম্রাজ্য রাজেন্দ্র চোল আই -এর অধিকারভুক্ত ছিল । সেই সময় এই দ্বীপের নাম ছিল ‘ মা-নাক্কাবরাম’। যার অর্থ নগ্ন ভূমি । আবার কেউ বলতো- ‘নেচুভেরান’।যায় থানজাবুর ১০৫০ সিই এর শিলালিপি ও ইউরোপীয় ভ্রমণকারী মার্কো পোলো (দ্বাদশ-শতাব্দী) এই দ্বীপটিকে ‘নেচুভেরান’ নামে উল্লেখ করেছেন। এরপর আন্দামানে আসে Colon পনিবেশিক সময়। ডেনিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি ১৭ ডিসেম্বর ১৭৫৫-এ নিকোবর দ্বীপপুঞ্জে পৌঁছেছিল। ১ জানুয়ারী ১৭৫৬-এ নিকোবর দ্বীপপুঞ্জকে ডেনিশ উপনিবেশ তৈরি করা হয়েছিল, যার নাম ছিল ফ্রেডরিক দ্বীপপুঞ্জ (ফ্রেডেরিক্সার্নে)। ১৮৩৪ এবং ধীরে ধীরে ১৮৪৮ থেকে ম্যালরিয়ার প্রাদুর্ভাবের কারণে দ্বীপপুঞ্জ থেকে তারা বিদায় নেয়। এরপর ডেনিসরা ১৮৬৮ সালের ১ অক্টোবর আনুষ্ঠানিকভাবে এই দ্বীপপুঞ্জের অধিকার ব্রিটেনের কাছে বিক্রি করে দেয় ও ১৮৬৯ সালে আন্দামান দ্বীপপুঞ্জ ব্রিটিশ ভারতের অন্তর্ভুক্ত হয়। এরপর ১৮৫৮ ইংরেজরা পাকাপাকি ভাবে আন্দামানে উপনিবেশ স্থাপন করে ও পোর্ট ব্লেয়ারে কুখ্যাত সেলুলার(cellular ) জেলের সূচনা হয় (১৮৯৬-১৯০৬)। যার বানাতে খরচ পড়েছিল ৫১৭,৩৫২ টাকা।

আন্দামান ও নিকোবরে অনেক দর্শনীয় স্থান আছে। আন্দামানের দর্শনীয় স্থানগুলি হল যেমন লং আইল্যান্ড,
সেলুলার জেল, আ্যনথ্রোপলোজিক্যাল মিউজিয়াম, মহাত্মা গান্ধী মেরিন্ ন্যাশনাল পার্ক। তেমনই নিকোবরের পরিদর্শনীয় স্থানগুলি হল-ইন্দিরা পয়েন্ট, কার নিকোবর , কটচল , গ্রেট নিকোবর আইল্যান্ড ইত্যাদি। কিন্তু  আন্দামান ও নিকোবরে শত দর্শনীয় স্থান থাকলেও আন্দামান ভ্রমণকারীর কিন্তু নর্থ সেন্টিনেল দ্বীপের জারোয়া ও সেন্টিনেলিজদের দেখার জন্য উৎসুক হয়ে থাকে। যদিও ১৯৭০ এর দশকে নির্মিত গ্রেট আন্দামান ট্রাঙ্ক রোড ও ১৯৯৮ সালে জারোয়া অধ্যুষিত দ্বীপের কাছে কিছু সভ্য মানুষের বসবাসের ফলে জারোয়ারা  কাছাকাছি এলেও পৃথিবীর আরেক আদিম জনজাতি সেন্টিনেলিজরা আজও সভ্য পৃথিবীর ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়েছে। যদিও ১৯৫৬ সালের আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের আদিবাসী উপজাতি সুরক্ষা আইনের বলে এই দ্বীপে ভ্রমণ এবং পাঁচ নটিক্যাল মাইলের (৯.২৬ কিমি) থেকে কাছাকাছি যে-কোন যোগাযোগের চেষ্টা নিষিদ্ধ। তবু কিছু  অত্যুৎসাহী পর্যটক চোরাগোপ্তা ভাবে ওই নিষিদ্ধ দ্বীপে যাবার চেষ্টা করেছে। এই ভাবে ২০১৮ সালের ১৭ ডিসেম্বর জন এলন চাউ (John Allen Chau) নামে ২৬ বছরের মার্কিন পর্যটকের মৃত্যু  হয় সেন্টিনেলিজদের হাতে।

১৯৭৩ সালে প্রথম ওই দ্বীপে যান ত্রিলোকনাথ পন্ডিত এর নেতৃত্বে এক নৃতাত্ত্বিক গবেষক দল। দ্বীপের আদিবাসীদের নিয়ে একটি নৃতাত্ত্বিক গবেষণা কার্যক্রম শুরু করার জন্য তারা ওই নিষিদ্ধ দ্বীপ গিয়েছিলেন। তারই অংশ হিসাবে সেন্টিনেলিজ আদিবাসীদের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপনের চেষ্টা করেন তারা। তিনি বলছেন, ”ওই আদিবাসীদের জন্য আমরা হাঁড়িপাতিল, অনেক নারকেল, লোহার তৈরি যন্ত্রপাতি নিয়ে গিয়েছিলাম। পাশের আরেকটি অনজে গোত্রের তিনজন সদস্যকেও আমাদের সঙ্গে নিয়ে গিয়েছিলাম যাতে তারা আমাদের সেন্টিনেলিজ লোকজনের কথার অনুবাদ আর আচরণের ব্যাখ্যা করতে পারে।” কিন্তু  সেন্টিনেলি লোকজনদের হাতে উদ্ধত তির ধনুক ও মারমুখি পরিস্থিতি দেখে তাঁরা দ্বীপটিতে পৌঁছাতে পারেননি।

জারোয়াদের সাথে আন্দামান

২০০৬ সালে দুই জন জেলে উত্তর সেন্টিনেল দ্বীপের কাছাকাছি গেলে দ্বীপবাসী সেন্টিনেলিজদের হামলায় হামলায় মারা যায় । ২০০৪ সালের সুনামির পর যখন ভারতীয় কর্মকর্তারা দ্বীপটির ওপর আকাশ থেকে জরিপ করার চেষ্টা করে, তখন দ্বীপের কয়েকজন অধিবাসী তির ছুঁড়ে হেলিকপ্টারটি বিধ্বস্ত করার চেষ্টা করে। এরপর থেকে ভারত সরকার নর্থ সেন্টিনেল দ্বীপের পাঁচ নটিক্যাল মাইলের (৯.২৬ কিমি) থেকে কাছাকাছি যাওয়া সাধারণ নাগরিকের জন্য নিষিদ্ধ ঘোষণা করে। এছাড়া বারাটাং যাওয়ার পথে জিরকাটাং নামে একটি জায়গা পড়ে। খুব ভোরে বেরিয়ে জিরকাটাং গিয়ে পারমিটের জন্য লাইন দিতে হয়। ফর্ম ফিলআপ থেকে পারমিটের ব্যবস্থা গাড়ির ড্রাইভারই করে দেয়। সকাল ৭টায় প্রথম বাস ছাড়ে। আন্দামান ট্রাঙ্ক রোড ধরে প্রায় ৫০ কিমি পথ জারোয়া রিজার্ভের ভিতর দিয়ে চলে গেছে। এখানে ফটো তোলা কঠোর ভাবে নিষিদ্ধ। বিশেষত জারোয়াদের ছবি।

এরপর ঘটে যায় সেই অত্যাশ্চর্য ঘটনা। লোমহর্ষকও বটে। ১৯৯১ সালের ৩রা জানুয়ারি রাতে ‘এম ভি তারমুগলি’ জাহাজে করে সেন্টিনেল দ্বীপের উদ্দেশে রওনা দেন বাঙালি নৃজ্ঞানী ড. মধুমালা চট্টোপাধ্যায়। সাথী ছিলেন আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের প্রশাসনের ডাক্তার অরুন মল্লিক। সঙ্গে সাধারণ পোশাক পরা কয়েকজন বুশ পুলিশ। পরের দিন সকালে জাহাজ থেকে নৌকা করে দ্বীপভূমিতে নামার চেষ্টা করেন। নির্ভয়ে নেমেও পড়েছিলেন। জংগলের মধ্যে কিছুটা এগিয়ে কয়েকটি কুঁড়েঘর দেখতে পান। কুঁড়েঘরের দিকে এগিয়ে যেতেই সেন্টিনেলিজদের  সাক্ষাৎ পান। এদের হাতে   তির-ধনুক ছিল। মুখচোখও সন্দেহজনক। নৃবিজ্ঞানী মধুমালা চট্টোপাধ্যায় ভয় না পেয়ে একটি, একটি করে নারকেল গড়িয়ে দিতে শুরু  করেন। সেগুলো নিতে থাকে সেন্টিনেলিজরা। তখন দূরে দাঁড়িয়ে থাকা ১৪ বছরে এক তরুণ মধুবালাকে নিশানা করে তির নিক্ষেপ করতে উদ্যোগী হতেই এক সেন্টিলেলিজ রমণী তাকে ধাক্কা দিয়ে মাটিতে ফেলে দেয় এবং নিশ্চিত মৃত্যুর হাত থেকে ডঃ মধুমালা চট্টোপাধ্যায়কে বাঁচান। তারপর সেই সেন্টিনেলিজ রমণীর হাত ধরে মধুমালা তাদের অন্দরমহলে পৌঁছে যান। তারপর তো ইতিহাস। জারোয়া সেন্টিনেলিজদের মা বলে পরিচিত হয়ে ওঠেন মধুমালা। আবার কারো কাছে ‘জংলী ম্যাডাম’। ড. মধুমালা নৃতাত্ত্বিক গবেষণার কাজে আট বার জারোয়াদের দ্বীপে গেছেন।
মধুমালা তাঁর ‘ট্রাইবজ অফ কার নিকোবর’ বইতে লিখেছেন – ‘ আমি কিন্তু তাদের বিশ্বাস অর্জন করতে পেরেছিলাম। এতটাই, যে কোনও জারোয়া মা কাজ করার সময় নির্দ্বিধায় তার ছেলেকে আমার কোলে দিয়ে বলত, ‘ওকে দূরে নিয়ে যাও। আমায় দেখলেই ও কাঁদবে।’ তাদের ভাষাও আমার কিছুটা রপ্ত হয়ে গিয়েছিল।’

আন্দামান দ্বীপপুঞ্জের আদিম উপজাতি বা নেগ্রিটো বংশোদ্ভূত গোষ্ঠীদের মূল পাঁচটি ভাগ করা হয়ে থাকে। (এক) গ্রেট আন্দামানি- এরা বর্তমানে আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জর স্ট্রেইট দ্বীপের বাসিন্দা যাদের সংখ্যা ২০১০ সালে ছিল ৫২ জন।  (দুই) জারোয়া- বৃহত্তম আন্দামানের বাসিন্দা, সংখ্যায় ২৫০ থেকে ৪০০ জন। (তিন) জাংগিল- রুটল্যান্ড দ্বীপের বাসিন্দা, বর্তমানে বিলুপ্তপ্রায়। (চার) ওঙ্গি বা ওঙ্গে – লিটল আন্দামানে বাসিন্দা, বর্তমানে এদের সংখ্যা ১০১ জন। (পাঁচ) সেন্টিনেলিজ- নর্থ সেন্টিনেল দ্বীপে থাকে। সংখ্যায় ১০০ থেকে ২০০ এর মতো। এছাড়াও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের দক্ষিণ প্রান্তে অবস্থিত গ্রেট নিকোবরে মঙ্গোলয়েড গোষ্ঠীর দ্বিতীয় শাখার অন্তর্ভুক্ত শম্পেন জনজাতির বাস। এদের সংখ্যা ২২৯ জন।

আন্দামান দ্বীপের চারপাশে রয়েছে প্রচুর প্রবাল।  এখানে প্রায় ২২৩ প্রজাতির সপুষ্পক উদ্ভিদ আছে। ৫০৩টি প্রজাতির নানান প্রাণী। ২২০ প্রজাতির সামুদ্রিক প্রাণী । ৩৩ প্রজাতির স্তন্যপায়ী। এছাড়া আছে ৯৬ প্রজাতির পাখি এবং ৬৬ প্রজাতির সরীসৃপ।
আন্দামান দ্বীপপুঞ্জের বিখ্যাত সামুদ্রিক প্রাণীর নাম-ডুগং। বিখ্যাত পাখি -বনকপোত । বিখ্যাত ফুল-জারুল । বিখ্যাত গাছের নাম-আন্দামান পাদাউক। বিখ্যাত আগ্নেয়গিরির নাম -ব্যারেন ( Barren) ও নারকোন্দম ( Narcondam)। এশিয়ার মধ্যে একমাত্র ব্যারেন জীবন্ত আগ্নেয়গিরি। আন্দামানের বিখ্যাত ও দীর্ঘতম নদীর নাম-কালপং। এটি স্যাডল গিরিশৃঙ্গ থেকে উৎপন্ন। এর দৈর্ঘ্য ৩৫ কিলোমিটার। এছাড়াও অন্যান্য নদীগুলি হল- আলেকজান্দ্রা, অমৃত কৌর, দানেস, গ্যালারিয়া এবং ডগমার। এবং আন্দামানের উচ্চতম পর্বতশৃঙ্গের নাম- স্যাডল পীক্, উচ্চতা ৭৩৮ মিটার।

লেখা পাঠাতে পারেন

1 COMMENT

  1. খুব ভালো। কত রহস্য লুকিয়ে যে আছে আমাদের আসেপাশে! আন্দামান – নিকোবোর দ্বীপপুঞ্জ নিয়ে এবং সেন্টিনেলিজ ও জারোয়াদের রহস্য নিয়েও অনেক কিছু জানলাম। লেখকক্ব ধন্যবাদ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here